BANGLA BEST CHOTI – PROTOSHODHER JOUNOLILA – 5

BANGLA BEST CHOTI – PROTOSHODHER JOUNOLILA – 5


বাংলা বেস্ট চটি – প্রতিশোধের যৌনলীলা – ৫

(Bangla Best Choti – Protoshodher Jounolila – 5)

Bangla Best Choti - Protoshodher Jounolila - 5
Bangla best choti – মধুরিমা যৌন উত্তেজনার বশবর্তী হয়ে নিজেই রতনের ডানহাতটাকে ধরে নিজের লালায়িত দুদের উপর রেখে রতনের হাত সহ দুদ দুটোকে টিপতে লাগল ।
মধুরিমার তুলতুলে, গোল গোল দুদ দুটোকে স্পর্শ করা মাত্র রতনের শরীরে যেন বিদ্যুত্ ছুটে গেল । বৌঠানের ইশারা বুঝতে পেরে রতন এবার আস্তে আস্তে দুদ দুটোকে টিপতে লাগল । সেইসাথে চুমু খেতে খেতে এবার মধুরিমার কানের পাশ দিয়ে ওর গাল বেয়ে ওর ঠোঁটে মুখ ঠেকালো । দুই জোড়া ঠোঁট একে অপরের সাথে গহীন আবেশে মিশে গেল । মধুরিমার মুখের লালারস রতন নিজের মুখে নিয়ে গিলতে লাগল ।
বামহাতে বৌঠানের মাথাটাকে শক্ত করে ধরে ওর ঠোঁট দুটোকে চুষতে চুষতে রতন ডানহাতে মধুরিমার দুদ দুটোকে এবার ক্রমশ জোরে জোরে টিপতে লাগল । ওর বাঁড়াটা ততক্ষণে ফুলে ফেঁপে কলাগাছ হয়ে উঠেছে এবং মধুরিমার দুই জাং-এর মাঝে গুঁতো মারতে শুরু করেছে । সেটা অনুভব করে মধুরিমা আর থামতে পারল না । রতনের ঠাঁটিয়ে ওঠা বাঁড়াটা, যেটা ততক্ষণে লুঙ্গির ভেতরে তাঁবু খাটিয়ে দিয়েছে, সেটাকে হাতে ধরল । রতনের চিমনির মত, ফেঁপে ওঠা বাঁড়াটাকে হাতে নিয়েই মধুরিমার ভুরু উঁচু হয়ে উঠল ।
অবাক ভঙ্গিতে বলল… “ওওওওররররেএএএ রতঅঅঅঅন…..!!! এটা কি রে…? তোর মেশিন ? কত বড় রে তোর যন্ত্রটা…? আজ আমার আঁটো-সাঁটো সোনাটা ফেটে যাবে রে…!!!”
রতনও হাসতে হাসতে বলল… “হ্যাঁ বৌঠান…. ফাটাতেই এসেছি আজ । আপনি বলছিলেন আমি নাকি হিজড়া…! আজ আপনি বুঝবেন, আমি হিজড়া না তাগড়া… আজ সত্যিই আপনার ওটাকে ছিঁড়ে খুঁড়ে দেব । তবে আমার দুটো শর্ত আছে ।”
মধুরিমা অবাক হ’য়ে জিজ্ঞেস করল…. “কি শর্ত রে বাবু…? আমার মত একখানা করকরে খাসা মালকে করতে এসেছিস, তাতেও আবার শর্ত…. তা বল… তোর কি শর্ত আছে ! আজ মধুরিমা তোর সব শর্ত মেনে নেবে । তোর এই ময়াল সাপের সুখ পেতে মধুরিমা আজ লাজ শরমের সব সীমানা অতিক্রম করে যাবে । বল… কি চাস তুই…?”
রতন কোনো লজ্জা না করে সরাসরি বলে দিল… “আপনাকে আমার এই যন্ত্রটা চুষতে হবে আর আপনাকে আমার মালটুকু খেতে হবে । বলুন, খাবেন…? যদি খান তবেই আপনাকে সুখ দেব । নইলে চলে যাব ।”
“না রে রতন, আজ তোকে আমি যেতে দেব না । তোকে আঁটকে রাখার জন্য যা করতে হয় করব । তোর মালও খাব । কিন্তু তার আগে তুই আমাকে তৃপ্ত কর । আমি যা বলব তোকে করতে হবে ।”
“করব বলেই তো এসেছি বৌঠান । আপনি যা চাইবেন তাই করব । বলুন কি করব…?”
“আয়, আমাকে কোলে তুলে বিছানায় নিয়ে চল ।”
রতন বাধ্য গোলামের মত মধুরিমাকে কোলে তুলে নিল । কোলে তুলতে গিয়ে আবারও মধুরিমার ডানদুদটা রতনের হাতে স্পর্শ খেল । রতন মধুরিমার ঠোঁটে মুখ গুঁজে দিয়ে চুষতে চুষতে ওকে খাটে নিয়ে গেল । তারপর আলগ করে ওকে খাটে চিত্ করে শুইয়ে দিয়ে ওর পাশে বসে পড়ল । তারপর রতন লুঙ্গি পরে রেখেই কাত হয়ে মধুরিমার পাশে শুয়ে পড়ল । ওর বাঁড়াটা ততক্ষণে পুরো তালগাছ হয়ে গেছে । সেই দানবীয় লিঙ্গটা তখন চিত্ হয়ে শুয়ে থাকা মধুরিমার জাঙে গিয়ে খোঁচা মারতে লাগল ।
খোঁচা খেয়ে মধুরিমা বলল… “কি রে রতন ! তোর রাইফেলটা তো গুলি ছোঁড়ার জন্য ছট্ফট্ করছে রে ! ওকে একটু সবুর করতে বল ! আগে তুই আমাকে তোর এই খরিশ সাপটাকে আমার সোনায় নেবার জন্য পুরো পাগল তো কর…!”
রতন অসহায় কন্ঠে বলল… “আসলে বৌঠান, আপনার গুদে ঢুকতে পাবে জানতে পেরে ওর আর তর সইছে না…!”
“কী….! গু-উ-উ-উ-দ….! পেকে গেছিস না…! তা ভালো তো । দিবি তোর ল্যাওড়াটা আমার গুদে । কিন্তু আগে আমার দুদ দুটোকে নিয়ে একটু খেলা তো কর…! আমার গুদটাকে একটু চুষে-চেটে দে….! তবেই তো তোকে তোর ল্যাওড়াটা আমার গুদে ভরতে দেব…! আয়… আমাকে আগে ল্যাংটো কর…! প্রথমে আমার দুদ দুটোকে নিয়ে টেপা-চুষা করবি কিন্তু । গুদে প্রথমেই হাত দিবি না । নইলে করতে দেব না কিন্তু…” —মধুরিমা দুষ্টুমি করে বলল ।
রতনও এখন বেশ পাকা হয়ে উঠেছে । তাই বৌঠানকে তাতানোর জন্য বলল… “সে আপনি যা বলবেন, যেভাবে করতে বলবেন সেটা সেভাবেই করব । কিন্তু আপনি কি করতে দেবেন না বললেন না তো…!”
মধুরিমা অবাক হবার ভান করে বলল… “তবে রে ঢ্যামনাচোদা আমার…! কি করতে দেব না সেটা বৌঠানের মুখ থেকে শোনার জন্য মনটা ছট্ফট্ করছে, না…? তবে শোন… আমি তোকে চুদতে দেব না । যদি আমার কথামত কাজ না করিস, তাহলে আমি তোকে আমার গুদটা চুদতে দেব না । হয়েছে…? শুনেছিস…? এবার তৃপ্তি হ’ল…? এবার আর একটাও কথা বললে তোমার ল্যাওড়ায় লাথি মেরে তেড়ে দেব তোমাকে । এবার যেটা বলছি সেটাই করো । আয়, আমার শাড়িটা খুলে দে ।”
রতন আদর্শ কাজের লোকের মত নিজের মালকিনের কথা মানল । বৌঠানকে উঠিয়ে বসিয়ে দিয়ে ওর শাড়ীর আঁচলটা টেনে নিচে নামিয়ে দিয়ে একটা পাক খুলে শাড়িটাকে কোমর অব্দি নামিয়ে দিল । তারপর আবার মধুরিমাকে শুইয়ে দিয়ে ওর কোমরে ওর শাড়ীর ফাঁস গুলোকে আলগা করে দিয়ে কোমরের দুই পাশে হাত ভরে শাড়িটাকে পুরো নিচে টেনে নিল । মধুরিমার শাড়ীটা ওর শরীর থেকে আলাদা হয়ে গেল ।
নিজের মনিবের বৌমার ফোলা ফোলা, ডাঁসা, বড় সাইজে়র কচি ডাবের মত দুদ দুটোকে ব্লাউজে়র উপর থেকে দেখেই রতনের চোখ দুটো বিস্ফারিত হয়ে গেল ।
মধুরিমা সেটা দেখে বলল… “অমন হাঁ করে কি দেখছিস…? দেখার তো কিছু নেই… তোরই তো সব । তোরই জিনিস তুই-ই আবার দেখবি কেন শুধু…! কি করতে ইচ্ছে করছে তোর…? যা ইচ্ছে করছে কর না…! চুষবি…? তো চুষ না বাবু…! যত পারিস চুষ । চুষে চুষে আমার দুদ দুটোকে গলিয়ে দিয়ে তুই আমার দুদের সব রসটুকু টেনে নিয়ে খা । আয়…!” —বলে মধুরিমা চিত্ হয়ে শুয়ে থেকেই রতনকে ইশারা দিল ।

Comments